Tagged: Mainuddin Mainul

প্রকল্প বাস্তবায়নে যোগাযোগের দক্ষতা কতটুকু প্রাসঙ্গিক?

একটি প্রকল্পের সফল বাস্তবায়নের জন্য যোগাযোগের দক্ষতা কতটুকু প্রাসঙ্গিক? প্রথাগতভাবে আমরা জানি জনবল, অর্থ এবং অবকাঠামো নিশ্চিত হয়ে গেলেই সংগঠন করা যায়। এরপরও কি যোগাযোগ দক্ষতার প্রয়োজন আছে?

এটি বুঝতে গেলে আমাদের দেখতে হবে কেন প্রকল্পগুলো ব্যর্থ হয়। একটি প্রকল্প ব্যর্থ, বিলম্বিত, ব্যয়বহুল (বাজেটের তুলনায়) এবং স্থগিত হয় কেন? জনবল, অর্থ এবং অবকাঠামো থাকলেই কি প্রকল্পের সফলতা নিশ্চিত হয়?

গবেষণায় দেখা যায় যে, প্রতি ৫টি প্রকল্পের মধ্যে ১টি প্রকল্প ব্যর্থ হয় কেবল যথাযথ যোগাযোগের অভাবে। একটি প্রকল্পের কর্মী এবং দাতা থেকে শুরু করে সাপ্লাইয়ার পর্যন্ত বিভিন্ন পর্যায়ের যোগাযোগ প্রয়োজন হয়। প্রকল্পের কর্মীকে বলা যায় প্রকল্পের প্রাণশক্তি। তাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো প্রজেক্ট টিমের মধ্যকার যোগাযোগ। অফিস প্রক্রিয়ায় আর দলিল-দস্তাবেজের নিচে চাপা পড়ে থাকে প্রকল্পের দৈনন্দিন কাজ। সভা, কর্মশালা, অনুমোদন, সিদ্ধান্তগ্রহণ ইত্যাদি বিষয় প্রকল্পের ডেডলাইন অর্জনের অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়।

দেশের অফিস সংস্কৃতি উপনিবেশ আমলের সর্বশেষ ঐতিহ্যটুকু ধরে রেখেছে, যা বিলেতেও এখন আর হয়তো নেই। প্রথাগত যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেকটাই ‘টপ-ডাউন’ বা জৈষ্ঠতা-নির্ভর, যা অংশগ্রহণমূলক ব্যবস্থাপনার পরিপন্থী। তাতে প্রকল্পের কর্মীরা যথাযথ অংশগ্রহণ করতে পারেন না। সেভাবে অবদানও রাখতে পারেন না। মাইক্রো-ম্যানেজমেন্ট-এর কারণে ব্যবস্থাপক-নির্ভর প্রকল্পগুলো অধিকাংশই বিপদগামী হয়। উৎপাদনমুখীতা সেখানে গুরুত্ব পায় না, আনুষ্ঠানিকতার ছড়াছড়ি।

প্রযুক্তির ব্যাপক বিস্তৃতি অফিস ব্যবস্থাপনায় আমূল পরিবর্তন এসেছে। এখন সময় গতিশীল যোগাযোগের। ব্যাংকিং থেকে সফটওয়্যার, করপোরেট থেকে উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান – সবখানে এসেছে ফলাফলমুখী যোগাযোগ। ফলে প্রথাগত যোগাযোগ ব্যবস্থা কঠিন পরীক্ষায় পড়েছে। গতিশীল যোগাযোগ ব্যবস্থাকে প্রযুক্তির ভাষায় বলা হয় অ্যাজাল কমিউনিকেশন

২।    অ্যাজাল কমিউনিকেশন কী?

▶প্রকল্পমুখী প্রতিষ্ঠান থেকে অ্যাজাল কমিউনিকেশনের উৎপত্তি: অ্যাজাল কমিউনিকেশনের জন্ম হয়েছে উৎপাদনমুখীতাকে অগ্রাধিকার দেবার জন্য। প্রক্রিয়া নয় ফলাফলই এখানে মুখ্য। আনুষ্ঠানিকতা নয়, তথ্যের আদানপ্রদানই অগ্রাধিকার পায়।

উৎপাদন, মুনাফা, ডেডলাইন মোতাবেক মানসম্পন্ন কাজ সম্পন্ন করা যেখানে অগ্রাধিকার পায়, সেখানে সিনিয়র-জুনিয়র পার্থক্য ততটা গুরুত্ব বহন করে না।

▶প্রচলিত যোগাযোগ ব্যবস্থার বিপরীত: প্রচলিত যোগাযোগ ব্যবস্থার বিপরীত অবস্থাকে অ্যাজাল কমিউনিকেশন বলা যায়। এই প্রক্রিয়ায় মানবিক যোগাযোগ বা সম্পর্ককেন্দ্রিক যোগাযোগ গুরুত্ব পায়। অর্থাৎ সম্পর্ক এবং কাজ পাশাপাশি চলে।

আনুষ্ঠানিক যোগাযোগের চেয়ে, মুখোমুখি বা ব্যক্তিগত পর্যায়ের যোগাযোগ এখানে প্রধান বিষয়। প্রতিষ্ঠানের ভেতরে এবং বাইরে এই নীতি অনুসরণ করা হয়।

কাগজ বা প্রমাণভিত্তিক যোগাযোগ প্রায় করা হয় না, যদি না ভবিষ্যৎ যোগাযোগ, অডিট অথবা আইনী বিষয় জড়িত না থাকে।

▶অ্যাজাল শব্দের ব্যবচ্ছেদ: আভিধানিক অর্থ: দ্রুত এবং সাবলীল; ক্ষীপ্র; চটপটে; গতিশীল।বাংলায় ‘গতিশীল’ বলা গেলেও সেটি পূর্ণ তাৎপর্য বহন করে না। টেলিকমিউকেশন, সফটওয়্যার কোম্পানি এবং প্রকল্প ব্যবস্থাপনার চর্চা থেকে অ্যাজাল কমিউনিকেশনের উৎপত্তি। অ্যাজাইল, কিন্তু ’অ্যা’-এর ওপর চাপ। যেসব সংগঠন অ্যাজাল, বলা যায়, তাদের আজিলিটি/ক্ষীপ্রতা আছে।

 

৩।    অ্যাজাল কমিউনিকেশন থেকে কী পাওয়া যায়?

▶সহজ ব্যবস্থাপনা, গতিশীল টিম: সরলতা বা সিমপ্লিসিটি অগ্রাধিকার। সর্বনিম্ন রিসোর্স নিয়ে সর্বোচ্চ ফলাফল। ছোট ছোট ‘ক্রস-ফাংশনাল’ টিম। বড় কাজগুলোকে ছোট অংশে ভাগ করে কর্মীর জন্য সহজ করে দেওয়া হয়। টিম ম্যানেজারের প্রধান কাজ থাকে, ’ব্যাকলগ’ সম্পর্কে সচেতন থেকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিমকে কাজে নিযুক্ত করা।

▶প্রক্রিয়া বা আনুষ্ঠানিকতার উর্ধ্বে ব্যক্তি এবং পারস্পরিকতা: অপ্রয়োজনীয়ডকুমেন্টেশন সৃষ্টি না করে মুখোমুখি সম্পর্ককে যোগাযোগের সর্বোত্তম মাধ্যম হিসেবে গণ্য করা হয়। ব্যক্তিগত সম্পর্ক, সহযোগিতা, নিরন্তর শেখা ও সমন্বয়সাধণের মধ্যে টিমের কাজ এগিয়ে চলে।

▶ভুল, সীমাবদ্ধতা, বিলম্ব, অনিশ্চয়তার উন্মুক্ত সমাধান: এখানে ভুল গোপনে থাকে না, সীমাবদ্ধতা ব্যক্তিকে সংকুচিত করে না, বিলম্ব অপ্রত্যাশিতভাবে আসে না এবং অনিশ্চয়তাকে সুনিশ্চিত মনে করা হয়। ভুল সার্বজনীন এবং স্বাভাবিক, কিন্তু সেটি টিমের অর্জনকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে না। যথাশীঘ্র এবং তাৎক্ষণিকভাবে ভুল সনাক্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। অ্যাজাল অফিসে বিলম্ব এবং অনিশ্চয়তা অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রত্যাশিত – কর্মী জানে কোথায় এবং কখন।

 

৯।    অ্যাজাল প্রিন্সিপাল – ১২টি অ্যাজাল নীতিমালা

ক) ক্রেতার সন্তুষ্টিতে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ১)  ত্বরিত এবং নিরবচ্ছিন্নভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়, যেন ক্রেতা/পৃষ্ঠপোষকের সন্তুষ্টি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায়
২)  ক্রেতা/পৃষ্ঠপোষকের কাছ থেকে প্রতিযোগিতাপূর্ণ সুবিধা নেবার স্বার্থে সকল পরিবর্তন/সংস্কারকে স্বাগত জানায়
৩)  স্বল্প সময়ের বিরতিতে মধ্যবর্তী এবং চূড়ান্ত কাজের ফলাফল হালনাগাদ করে
৪)  নিয়মিতভাবে কর্মী এবং পৃষ্ঠপোষক একসাথে প্রকল্পের বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে
খ) স্বপ্রণোদিত প্রজেক্ট টিম ৫)  কর্মোদ্দীপ্ত ব্যক্তিদের নিয়ে প্রজেক্ট টিম গঠিত হয়, তাদেরকে প্রয়োজনীয় পরিবেশ ও সহযোগিতা দেওয়া হয় এবং কাজটি সম্পন্ন করার জন্য তারা আস্থাভাজন হয়
৬)  মুখোমুখি কথোপকথনকে তথ্য আদানপ্রদানের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত মাধ্যম মনে করা হয় (যা আনুষ্ঠানিক নয়)
৭)  সফলতা পরিমাপ করার জন্য ফলাফলকেই সূচক হিসেবে গণ্য করা হয়, ‘প্রক্রিয়া’ নয় (আমাদের ক্ষেত্রে যা পারফর্মেন্স ইন্ডিকেটর)
৮)  অ্যাজাইল প্রক্রিয়ায় টেকসই উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়, যেখানে প্রকল্পের কর্মী, পৃষ্ঠপোষক এবং অংশগ্রহণকারীরা একসময় বিচ্ছিন্নভাবেও একই ফল দেয়
গ) অন্তহীন উন্নয়ন ৯)  গতিশীলতা বাড়াবার জন্য পেশাদারিত্ব, প্রযুক্তিগত উৎকর্ষ এবং উন্নত পরিকল্পনার দিকে অব্যাহত মনোযোগ থাকে
১০) সহজতা বা সহজভাবে কাজটি সম্পন্ন করার দিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়, অর্থাৎ সর্বনিম্ন ব্যয়ে সর্বোচ্চ ফলাফল
১১)  স্বপ্রণোদিত ব্যক্তিবর্গের সমন্বিত উদ্যোগের ফলে উৎকৃষ্ট এবং সুদূরপ্রসারী প্রকল্প সম্পন্ন হয়
১২)  অধিকতর কার্যকর এবং ফলবাহী হবার জন্য প্রকল্পের কর্মীরা নিয়মিত একত্রিত হয়ে নিজেদের আচরণ ও কর্মপ্রক্রিয়াকে মূল্যায়ন করে গতিশীল ও পরিশুদ্ধ করে তোলে
Contextualized to Vernacular Project Management, focusing on Development Projects

 

Graph collected from open source

এপ্রসঙ্গে পূর্বের একটি পোস্ট: ১৩ উপায়ে প্রকল্প ব্যবস্থাপনাকে নিয়ে আসুন হাতের মুঠোয়

 

পরবর্তি পর্ব: অ্যাজাল কমিউনিকেশন-এর সাথে প্রচলিত যোগাযোগ পদ্ধতির পার্থক্য

কাব্যকণা/ চিন্তাকণা

ছবি আঁকার ক্যানভাসটি হাঁটুজলে তিনপায়া স্ট্যান্ডের ওপর আটকে আছে। আর আমি আটকে আছি তোমাতে…! অথচ কী দুর্ভাগ্য তুমি কিনা আটকে আছো আকাশের তারা গণনায়। তুমি কি আজও বিশ্বাস করো না যে, বিশ্বের সবগুলো সৌরজগতের গ্রহ-নক্ষত্রের কক্ষপথ আটকে আছে শুধু একটি জায়গায়!

.

২)
একদিন প্রজাপতি হবো…
ভুলে যাবো এপর্বের সব বেদনা
সৃষ্ট হবে নূতন আমি’র;
তোমাকে নিয়ে হবে নূতন সূচনা।

.

৩)
তোমাকে ভালোবাসা বদঅভ্যাসে রূপ নিয়েছে…
ছেড়ে দিতে চাই তবু কেন যে পারি না!

.

৪)
বেড-ল্যাম্পের ঢাকনার মতো মস্ত আকারের উজিরটুপি পড়ে একদল মধ্যযুগী এসে আমাকে বললো, “জাহাপনা! আপনার বয়স বাইরা যাইতেছে … কথাবার্তা খিয়াল কইরা কইবাইন। কইবাইন অনেক কম। লেখবাইন আরও কম। শোনা তো একদমই নিষেধ! …একদম খাইয়ালবাম!” ঘুম ভেঙ্গে দেখি বেড-ল্যাম্পটি নেভানো হয় নি! [মার্চ ২০১৭]

.
৫)
প্রতিটি ফাগুন যেন জীবনের বার্ষিক নবায়ন… একবছর বেঁচে থাকার পুরস্কার। ফুল ফল প্রাণী আর মানুষকে একযোগে আন্দোলিত করে এই ফাগুন, যার বর্ধিত রূপ হলো চৈত্র আর বৈশাখ। অতএব ফাল্গুনকে বছরের প্রথম মাস হিসেবে ঘোষণা দেবার দাবিতে যেকোন মুহূর্তে আন্দোলনের ডাক দিয়ে বসতে পারি!
(ফেইসবুক স্ট্যাটাস ২০/২/২০১৭))

.

৬)
বহুরূপী মানুষের ভিড়ে মুখোশ একটি চিরস্থায়ী অবয়ব। মনের বা মানের পরিবর্তনে এর কোন পরিবর্তন হয় না। মুখোশের নির্মোহ সৌন্দর্য্যে আমি মুগ্ধ হচ্ছি দিনকে দিন। এরচেয়ে স্বচ্ছ বা নির্দোষ আর কী হতে পারে! এমন একটি রূপ ধারণ করতে খুবই ইচ্ছে হয়, যা পরিবর্তন বিবর্তন বা রূপান্তরের ঝুঁকি থেকে মুক্ত। এমন কিছু হতে ইচ্ছে হয়, যার পর আর কিছু হবার প্রয়োজন থাকবে না।
(ফেইসবুক স্ট্যাটাস ১৫/২/২০১৭)

.

৭)
Keep silent and never try to promote others… be selfish and never try to work for the bigger majority… never try to improve quality in works… never try to talk in favor of morality, honesty, transparency etc… never try to promote high standards… but accept whatever is available and say ‘yes yes’ to seniors in all situations. My friend…your life will be a lot easier and full of friends. However, only one thing you’ll have to sacrifice… that is ‘a clean soul’ within you.
Already following those rules? Excellent! You are the smartest guy in the present day world! Cheers!!!
(Remember “Dr Faustus” of Marlowe?)
৩১/১/২০১৭

.

৮)
অন্তত আর একদিন আমরা সবাই একসাথে মিলিত হবো। একই বন্ধুদের একই সেই ব্যাচ। ঠিক আগের জায়গায়, আগের বিষয়গুলো নিয়ে আমরা আলোচনায় মেতে ওঠবো। হাসাহাসি হইহুল্লা করবো। আশেপাশে অথবা টেবিলের সামনে সেই আগের খাদ্যদ্রব্যগুলো থাকবে। আগের মতোই ঘড়ির কাটাকে স্বাধীনতা দিয়ে আড্ডায় হারিয়ে যাবো। আগের সেই গানগুলো ক্যাসেটপ্লেয়ারে বাজতে থাকবে। ঠিক আগের মতোই বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্নতায় সবকিছু অন্ধকার হয়ে যাবে, বন্ধ হয়ে যাবে গান। আর চাঁদের আলোয় সিলিং ফ্যানটি তখনও ঘুরতে দেখা যাবে। ঠিক তখনই জাগতিকতায় ফিরে আসবো। তখন আগের মতোই বলবো, বিদ্যুৎ চলে গেছে ভালোই হলো, এবার চলো ঘুমাতে যাই।
(ফেইসবুক স্ট্যাটাস ২২/১/২০১৭)

.

৯)
শিকাগোতে প্রেজিডেন্ট হিসেবে ওবামার শেষ বক্তব্যের শুরুতে দর্শক যেভাবে তাকে ১০মিনিট পর্যন্ত অভ্যর্থনা দিলো, তাতে আমি কেবল হাহাকার শুনতে পেলাম। এই হাহাকার আসন্ন ট্রাম্প প্রশাসনের আশঙ্কাকে মূর্ত করে দিয়েছে। ইসরায়েলি বসতির পক্ষে ভোট না দিয়ে ওবামা তার শান্তি পুরস্কারের জন্য একটু সুবিচার করে গেলেন শেষবেলায়। বিদায়… আমেরিকার সর্বশেষ প্রগতিশীল শাসক! আর কোন কালো মানুষকে কি মার্কিন শাসক হিসেবে দেখা যাবে?
(১১/১/২০১৭)

.

১০)
ফেইসবুক কবিদেরকে চেনার উপায় কী? (কয়েকটি ধারণা)
.
বিড়িমুখে মহাসুখে
উড়াই ধূম্রবৃত্ত [প্রোফাইল ফটো]
বিশ্বাস ধর্ম রাষ্ট্রের কথায় 
টলে না মোর চিত্ত। [সারবস্তুহীন আবেগী স্ট্যাটাস]
.
এদেশ এসমাজ, বলে রাখছি এই
আমার ছিল না, আমার নেই [এই মর্মে স্বদেশত্যাগী কাব্য]
.
দেখিতে গিয়াছি পর্বতমালা
দেখিতে গিয়াছি সিন্ধু
ডিএসএলআর-নিসৃত
ফটোকাব্যে রেখে দিলাম বিন্দু। [ডিএসএলআর কবি]
.
[ঢাকা সংস্করণ: ২৮১২১৬]
[সমালোচনা নয়, একটি পর্যবেক্ষণ মাত্র]

.

১১)
পানসুপারিতে রঙিন করিয়া মুখ, গাড়োয়ান কহিলো, হুজুর ঘুমাইবার খায়েস থাকিলে আমার নিকটে বসা যাইবে না। আমিও ছাড়িবার পাত্তর নই, আসন ধরিয়া রাখিলাম। রাত্তির দ্বিপ্রহরে পহুচিলাম এমন এক গন্তব্যে, যেখানে রাত্তিরের ঘুম নিতান্তই অপ্রাসঙ্গিক। কিন্তু প্রভাত হইতেই দেখি সবকিছু ছিল স্বপ্নমাত্র! আবারও রাত্তিরের প্রতীক্ষায় শুরু হইল দিবস। (ঘাটাইল ভ্রমণ/ ১৯ ডিসেম্বর ২০১৬)

.

১২)
বিনোদন মানুষের সহজাত চাহিদা, কিন্তু বাঙালির বিনোদনের বড়ই অভাব। কিছু মানুষের প্রিয় বিনোদন হলো অন্যের দোষত্রুটি নিয়ে দুর্বার অনুসন্ধানে ব্যস্ত থাকা। পরস্পরের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে সেখানে নিজেকে শান্তি-প্রতিষ্ঠাকারী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে তারা প্রাকৃতিকভাবেই সুদক্ষ। তাদের চোখে-মুখে-অন্তরে কেবলই সমস্যা আর দলাদলির কথা। আপনি তাদের কাছে অতি দ্রুত আপন হয়ে যাবেন, যদি আপনার সংগ্রহে থাকে অন্যের দুর্বলতার কিছু নমুনা। সত্য হোক মিথ্যা হোক, স্মিতহাস্যে তারা আপনাকে সুযোগ করে দেবে আরও কিছু বলার জন্য। তারা সমস্যাবিলাসী, বিবাদপ্রত্যাশী। অগ্রগতিতে নয়, দুর্গতিতে তাদেরকে মনে হয় অধিক মেধাবী। সম্পর্ক সৃষ্টি নয়, সম্পর্ক ভাঙনে তারা কৃতীত্ব নেয়। এদেরকে চেনা যায় না, হয়তো প্রমাণও করা যায় না, কেবল বুঝা যায়। এরা সমাজ ও সংগঠনের নিরব ঘাতক।
(ফেইসবুক স্ট্যাটাস ২৩/১১/২০১৬)

বাঙালি হৃদয়ের উষ্ণতা

গল্পটি বাঙালি হৃদয়কে শীতের বিকালে একটু উষ্ণতা দিতে পারে। বিদেশি বা শ্বেতবর্ণের হলেই যে ধনী নয়, আমাদের এক অবাঙালি বন্ধু বাংলাদেশিদেরকে প্রতিদিন প্রমাণ করে চলেছেন। পেশাগত বন্ধুরা হয়তো তার এ রূপটি জানেন না। তবে দারোয়ান, রিক্সাওয়ালা আর খাবারের দোকানদার তাকে চিনে নিয়েছেন। জীবিকার জন্য শিক্ষকতা এবং দেশেবিদেশে ঘুরে বেড়িয়ে চিত্র প্রদর্শনী তার কাজের অংশ।

ঘটনাক্রমে তিনি আমাদের পারিবারিক বন্ধুও। এশিয়ারই একটি শি্ল্পোন্নত দেশে তার আদি নিবাস। স্বভাবে চলনে মননে তিনি একজন শিল্পী। এদেশে একটি আন্তর্জাতিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে কোনমতে জীবিকা নির্বাহ করেন। আচরণে ভনিতা নেই, পোশাকে নেই বিলাসিতা। উপায়ও নেই। অর্থ আর খাদ্যের অভাব তার নিত্যসঙ্গী। কিন্তু আনন্দের শেষ নেই! আমি দেখেছি, শিল্পী সাহিত্যিকদের জীবনে অভাব অনেকটা অবিচ্ছেদ্য বিষয়। (কবি কী বলেন?)

তার প্রতিটি দিন নিয়েই একটি গল্প লেখা যায়। সম্প্রতি শীতের ছুটি এবং চিত্রপ্রদর্শনীকে একযোগ করে তিনি ইতালিতে গিয়েছিলেন। মাধ্যম বাংলাদেশ বিমান। তার গল্পটি আজ আমার কাছে এসেছে ব্রেইকিং নিউজ হিসেবে।

বাংলাদেশে ফেরার পথে আবিষ্কার হলো যে, ডলার শেষ! ভাগ্য ভালো যে বিমানবন্দরে আসার পর এটি জানা গেছে। কিন্তু ঢাকা পর্যন্ত ফিরতে পারবে এটি নিশ্চিত হলেও বিমান ছাড়তে আরও পুরো একবেলা বাকি। এ একবেলা কে তাকে খাওয়াবে? সঙ্গে আছে কিছু টাকা, যা বিনিময়যোগ্য নয়! বোকার মতো চেষ্টা করলেন একে ডলারে রূপান্তর করতে।

ঘুরতে ঘুরতে কিছু বাঙালি-মতো মানুষের দেখা পেলেন তিনি। প্রায় দু’বছর বাংলাদেশে থাকার অভিজ্ঞতায় তিনি বুঝতে পারলেন, তারা বাঙালি। আধা বাংলায় তাদেরকে জিজ্ঞেস করলেন, তার হাতের টাকাগুলোকে ডলারে পরিণত করার কোন বুদ্ধি তাদের জানা আছে কি না। স্বাভাবিকভাবেই তারা কোন সমাধান দিতে পারলেন না। কিন্তু আধা-বাংলা আধা-ইংরেজিতে তাদের কথোপকথন চলতে থাকলো। একপর্যায়ে, তারা বুঝতে পারলেন যে, এই অবাঙালি চিত্রশিল্পীর প্রধান প্রয়োজন হলো একবেলা খাওয়া। তারপর ঢাকা বিমানবন্দরে নেমে বাসা পর্যন্ত যেতে তার আর অর্থের অভাব হবে না। কিন্তু খাবারের প্রয়োজনটি এখন সবচেয়ে বড় প্রয়োজনে রূপ নিয়েছে।

বিষয়টি বুঝতে পারার পর বাঙালি বন্ধুরা আর তাকে ছাড়লেন না। তাদের সাথেই ম্যাকডোনান্ডস-এ তাকে খাওয়ালেন এবং তার প্রিয় পানীয় কফিও তা থেকে বাদ গেলো না। বাঙালিরাও হয়তো মজা পেলেন, কারণ এরকম বদান্যতা গ্রহণে তার কোন অস্বস্তি নেই, বরং নিয়মিত ঘটনা।

এর পরের ঘটনাটি একটু ভিন্ন রকমের। আশেপাশের কয়েকজন ভারতীয় যাত্রী বিষয়টি ভালো চোখে দেখলো না। তাদের কোন অভিজ্ঞতার আলোকে তারা এতে প্রতারণার সম্ভাবনা দেখতে পেলো। কীভাবে একজন নিরীহ নারীকে প্রতারণার হাত থেকে বাঁচানো যায়, তারা উপায় খুঁজতে লাগলো। একটি সময়ে যখন বাঙালি বন্ধুরা তাকে ছেড়ে ওয়াশরুম অথবা স্মোকিংরুমে গেলেন, তখন ওই ভারতীয় ‘স্বেচ্ছাসেবীরা’ তাকে বাঁচাতে এলো। কিন্তু আমাদের অবাঙালি বন্ধুটি এতে মনে মনে বিরক্ত হলেন, কারণ তাদেরকেও তিনি প্রথমে বাঙালি মনে করে সাহায্য চেয়েছিলেন, যাতে তারা অপারগতা প্রকাশ করেছিল। বিরক্তি প্রকাশ না করে তিনি ভারতীয় সহযাত্রীদেরকে জানালেন যে, তারা তার পূর্ব পরিচিত। অতএব এবিষয়ে আর কথা নয়।

যা হোক বাঙালিরা ঢাকা বিমানবন্দর পর্যন্ত তার সঙ্গে ছিলেন এবং ঢাকায় এসে সিএনজিতে তোলে দিয়ে তারা বিদায় নিয়েছিলেন। বলা যায়, বাসা পর্যন্ত তারা তার সঙ্গেই ছিলেন, কারণ সিএনজি ড্রাইভারের মোবাইল ফোনে কল দিয়ে তারা তার বাসায় পৌঁছানো নিশ্চিত করেছিলেন।▲

————
ফেইসবুক স্ট্যাটাস: ৬ জানুয়ারি ২০১৭